Jana Ojana Totthoসম্প্রতি

শুধুমাত্র ইসলাম ধর্মের প্রচারের জন্যই হযরত শাহ্ মোহছেন আউলিয়ার (রহ.) এসেছিলেন চট্টগ্রামে।

চট্টগ্রাম শহর থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরুত্বে অবস্থিত হযরত শাহ্ মোহছেন আউলিয়া (রাঃ) এর মাজার শরীফ। আনোয়ারা উপজেলার দেয়াং পাহাড় ঘেড়া বটতলী ইউনিয়নের রুস্তমহাট এলাকায় হযরত শাহ্ মোহছেন আউলিয়া (রাঃ) মাজার অবস্থিত। আল্লাহ্ তায়ালার মনোনীত দ্বীন ইসলামের প্রচার প্রসারে আল্লাহ্ পাক তার প্রিয় রাসুল (সা.)’র নির্দেশে অক্লান্ত পরিশ্রম করে ইসলামের বিজয়কেতন উড়িয়েছেন এবং এদেশে মজলুম মানবগোষ্ঠীকে ইসলামের শান্তির ছায়াতলে স্থান দিয়েছেন। আরব সুদূর থেকে সমুদ্রপথে ইসলাম প্রচারে চট্টগ্রামে আগমন করেন হযরত শাহ্ মোহছেন আউলিয়া (রহ.)। তিনি ৬শ বছর আগে তার মামা বদর আউলিয়ার (রহ.) সঙ্গে আনোয়ারায় এসেছিলেন।  ড. মুহাম্মদ এনামুল হকের ‘পূর্ব পাকিস্তানে ইসলাম’ নামক গ্রন্থে হযরত শাহ্ মোহছেন আউলিয়ার (রহ.) ওফাতকাল ১৩৯৭ খ্রিস্টাব্দ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। ঝিওরি গ্রামের প্রথম তার দাফন করা হয় এবং সেখানেই মাজার গড়ে ওঠে। শঙ্খ নদীর ভাঙনে এক পর্যায়ে তার মাজারটি নদীতে বিলীন হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়। শঙ্খ নদীর ভাঙনে হযরত শাহ্ মোহছেন আউলিয়ার (রহ.) মাজার যখন বিলীন হয়ে যাওয়ার পথে। তাখন তার লাশ বটতলী ররুস্তমহাটে সমাধিস্থ করা হয়।
আনোয়ারা উপজেলার বটতলী ইউনিয়নে বটতলী গ্রাম অবস্থিত। এটা শাহ্ মোহছেন আউলিয়ার (রহ.) দ্বিতীয় মাজার। সেখানে তিনি চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন।
বর্তমানেও ইসলামের প্রসারে কাজ করে যাচ্ছে মাজারটি, ভক্ততের নিকট হতে প্রাপ্ত দানের টাকায় মসজিদ মাদ্রাসা সহ গড়ে ওঠেছে নানান ইসলামিক স্থাপত্য।
হযরত শাহ্ মোহছেন আউলিয়ার (রহ.) একজন সফল ইসলাম ধর্মের প্রচারক।
=> মোহছেন আউলিয়া (রহ.) এর জীবনী
সূত্র: http://www.protidinersangbad.com/i-am-mine/135429/ https://www.banglapostbd.com/news/57293

এরকম নিত্য নতুন তথ্য জানতে HelpBangla.com নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button