রবিবার, ২২ মার্চ, ২০২০

স্বাধীনতা বিপ্লবী মাষ্টার দা সূর্যসেনের জন্মদিন আজ

আজ ২২ মার্চ এক মহান বাঙালি স্বাধীনতা বিপ্লবীর জন্মদিন

বিট্রিশ বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম মাষ্টার দা সূর্যসেনের ১২৬ তম জন

সূর্যসেন, মাস্টারদা (১৮৯৪-১৯৩৪) ‘যুগান্তর’ দলের চট্টগ্রাম শাখার প্রধান ও স্বাধীনতা বিপ্লবী,  এবং ১৯৩০ সালে বিট্রিশ বিরোধী আন্দোলনে চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুণ্ঠনের প্রধান সংগঠক। মাষ্টার দা সূর্যসেনের জন্ম ১৮৯৪ সালের ২২ মার্চ চট্টগ্রামের রাউজান থানার নোয়াপাড়া গ্রামে। মাষ্টার দা সূর্যসেনের পুরো নাম সূর্যকুমার সেন, ডাক নাম কালু। বাবা রাজমনি সেন এবং মা শশীবালা দেবী। স্থানীয় দয়াময়ী বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষার পর নোয়াপাড়া উচ্চ ইংরেজি বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশুনা করেন এবং ১৯১২ সালে চট্টগ্রাম ন্যাশনাল হাই স্কুল থেকে প্রবেশিকা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে চট্টগ্রাম কলেজে ভর্তি হন।


সূর্যসেন যখন নোয়াপাড়া উচ্চ ইংরেজি বিদ্যালয়ের ছাত্র তখন বঙ্গভঙ্গকে (১৯০৫) কেন্দ্র করে বাংলায় স্বদেশী আন্দোলন শুরু হয়। ক্রমে এই আন্দোলন বিপ্লবী আন্দোলনে রূপ নেয়। ১৯১৬ সালে মুর্শিদাবাদের বহরমপুর ফিরে গিয়ে ব্রিটিশ বিরোধী একটা বিপ্লবী দল গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত নেন। সূর্যসেন ১৯১৮ সালে চট্টগ্রামে ফিরে বিপ্লবী যুগান্তর দলকে পুনরুজ্জীবিত করেন। 

 ১৯১৯ সালের পাঞ্জাবের জালিয়ানওয়ালাবাগের হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে চট্টগ্রামের ছাত্ররা ক্লাসবর্জন সহ সভা-সমাবেশ করে। চট্টগ্রামের বিপ্লবীরা মাস্টারদা এর নেতৃত্বে সংঘবদ্ধ হন। 






১৯৩০ সালের ১৮ এপ্রিলের সশস্ত্র বিদ্রোহ ছিল সূর্যসেনের নেতৃত্বে বিপ্লবীদের দীর্ঘ সময়ের প্রস্ত্ততি ও সুষ্ঠু পরিকল্পনার ফসল। প্রাথমিক পর্যায়ে অহিংস ও নিয়মতান্ত্রিক পথ ধরে বিপ্লবের সূচনা হলেও সময়ের ব্যবধানে সংগ্রামের অবশ্যম্ভাবী পরিণতিতে হিংসাত্মক কর্মনীতি বা বিপ্লববাদ দেখা দেয়। খ্রিস্টানদের গুড ফ্রাইডেতে বিপ্লবীদের কর্মসূচি ছিল:

১. পুলিশের অস্ত্রাগার লুণ্ঠন। এই দলের নেতৃত্ব দেন অনন্ত সিং ও গণেশ ঘোষ;

২. দলের নেতৃত্বে ছিলেন নির্মল সেন ও লোকনাথ কাজ ছিল অক্সিলিয়ারি ফোর্সের অস্ত্রাগার দখল। 






৩.  আম্বিকা চক্রবর্তী এই দলের নেতৃত্ব দায়িত্ব ছিল টেলিফোন-টেলিগ্রাফ ভবন দখল।

৪.  নরেশ রায়ের নেতৃত্বে ইউরোপীয় ক্লাব আক্রমণ।

৫. চট্টগ্রামের সঙ্গে অন্যান্য অঞ্চলের রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করার দায়িত্বে ছিলেন উপেন্দ্রকুমার ভট্টাচার্য ও লালমোহন সেন;

৬. বিদ্রোহের খবর চট্টগ্রাম শহরে প্রচারের দায়িত্বে ছিলেন সুখেন্দু দস্তিদার, শৈলেশ্বর চক্রবর্তী, অর্ধেন্দু গুহু, দীনেশ চক্রবর্তী ও হরলাল চৌধুরী।

বিপ্লবীদের ঘোষণাপত্রের প্রথমটিতে ছিল সশস্ত্র বিপ্লবের উদ্দেশ্য, দ্বিতীয়টিতে ছিল দেশের যুবকদের প্রতি রিপাবলিকান আর্মিতে যোগ দিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে বিদ্রোহে যোগদানের আহবান।

১৮ তারিখে গুড ফ্রাইডে থাকায় সেদিন ইউরোপীয়ান ক্লাবে ইংরেজ পদস্থ কর্মকর্তারা কেউ উপস্থিত ছিল না এবং অক্সিলিয়ারি ফোর্সের অস্ত্রাগারে ভারী অস্ত্র মিললেও কোন গুলি পাওয়া যায়নি বলে এই দুটি ক্ষেত্রে আশানুরূপ সফলতা আসেনি। তবে সূর্যসেনের নেতৃত্বে পুলিশের অস্ত্রাগার দখলের পর অস্ত্র ও গুলি সংগৃহীত হয়।






অস্ত্রাগারে আগুন লাগানোর সময় অগ্নিদগ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হন বিপ্লবী হিমাংশু বিমল সেন। সূর্যসেন পাহাড়ে আত্মগোপন করেন। তিনি দলের বয়োজ্যেষ্ঠ সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেন যে, বিপ্লবী দল চট্টগ্রামে গিয়ে ইংরেজদের আক্রমণ করবে। সবাই এতে একমত হলে মাস্টারদা লোকনাথ বলকে ভারতীয় প্রজাতন্ত্রী বাহিনীর সেনাপতি নিযুক্ত করেন ও বিপ্লব পরিচালনার দায়িত্ব দেন। ১৯৩০ সালের ২২ এপ্রিল এ সংঘটিত যুদ্ধে ১৪ জন বিপ্লবী শহীদ হন। সূর্যসেন এর নেতৃত্বে দলটি পাহাড়ে আত্মগোপন করেন। এদের ধরার জন্য ইংরেজ সরকার পুরস্কার ঘোষণা করে। সূর্যসেনকে গ্রেফতার করতে না পারলেও সরকার ১৯৩০ সালের ২৪ জুলাই চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুণ্ঠন মামলা চট্টগ্রামের বিশেষ ট্রাইবুনালে শুরু করে। ১৯৩২ সালের জুন মাসে মাস্টারদা প্রীতিলতা ও কল্পনা দত্তকে বোমা সংগ্রহ করে চট্টগ্রাম কারাগার ডিনামাইট দিয়ে উড়িয়ে দেবার নির্দেশ প্রদান করেন। কিন্তু সে পরিকল্পনা ব্যর্থ হয়। এই ঘটনায় ১১ জন বিপ্লবী গ্রেফতার হন। ২৪ সেপ্টেম্বর তারিখে প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার পাহাড়তলী ইউরোপীয়ান ক্লাবে সফল আক্রমণ চালান, তবে তিনি গুলিবিদ্ধ হন এবং সায়ানাইড খেয়ে আত্মহত্যা করেন।





এ ঘটনার পরে মাস্টারদা পটিয়ার নিকটে গৈরালা গ্রামে আত্মগোপন করেন। কিন্তু গ্রামবাসীদের একজন সূর্যসেনের লুকিয়ে থাকার তথ্য পুলিশকে জানিয়ে দেয়। ১৯৩৩ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারির প্রথম প্রহরে একদল গোর্খা সৈন্য গোপন স্থানটি ঘিরে ফেলে। সৈন্যবেষ্টনী ভেঙ্গে বেরিয়ে যাওয়ার সময় সূর্যসেন ধরা পড়েন। সঙ্গে ছিলেন কল্পনা দত্ত, শান্তি চক্রবর্তী, সুশীল দাস গুপ্ত ও মনিলাল দত্ত সহ আরও কয়েকজন বিপ্লবী।





‘যুগান্তর’ দলের চট্টগ্রাম শাখার নতুন সভাপতি তারকেশ্বর দস্তিদার সূর্যসেনকে চট্টগ্রাম জেল থেকে ছিনিয়ে আনার প্রস্ততি নেন। কিন্তু পরিকল্পনাটি ব্যর্থ হয়। তারকেশ্বর এর সঙ্গে আরও কয়েকজনের গ্রেপ্তার হন। ১৯৩৩ সালে সূর্যসেন, তারকেশ্বর দস্তিদার এবং কল্পনা দত্তের বিশেষ আদালতে বিচার হয়। ১৪ আগস্ট সূর্যসেন ও তারেকেশ্বর দস্তিদার এর ফাঁসির রায় হয় এবং কল্পনা দত্তের যাবজ্জীবন কারাদন্ড হয়। ১৯৩৪ সালের ১২ জানুয়ারি চট্টগ্রাম কারাগারে উভয়ের ফাঁসি কার্যকর হয়।
(★  বাংলাপিডিয়া)






কিন্তু দুঃখের বিষয় হলেও চরম সত্য,বর্তমানে কেউ এমন মহান ব্যক্তিকে স্মরণ করে না😰
যার কারনে আমরা স্বাধীন দেশ পেয়েছি,তাকেই আমরা ভুলে যাচ্ছি😰
উনাকে সম্মান জানানোর জন্য কোন স্মৃতি নেই বরং বিস্মৃতি করে দেওয়া হচ্ছে সবকিছু😰
বাংলাদেশে পালন করা হয় না, জন্মবার্ষিকী বা মৃত্যুবার্ষিকী😰
নতুন প্রজন্ম কিভাবে জানবে, এদেরকে আত্মত্যাগের কারনেই আমরা স্বাধীন দেশ পেয়েছি।
হয়তো নতুন প্রজন্ম চিনেই না উনি কে!!😰
এর মূল কারন হচ্ছে আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা। কেননা, কোথায়ও এদের নাম পাওয়া যায় না😰

তারপরও আমাদের প্রাণে সবসময় তুমি আছে এবং থাকবে।
আজকে জন্মদিনের তোমাকে জানাই শতকোটি প্রণাম আর বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলী🌹🌹

Share This Post Now


Related Posts

স্বাধীনতা বিপ্লবী মাষ্টার দা সূর্যসেনের জন্মদিন আজ
4/ 5
Oleh